Three Young Bangladeshi died in SA for Covid19

শাপলা টিভি রিপোর্টঃ
মাত্র ২৪ ঘন্টার মধ্যে তিন প্রবাসী যুবকের মৃত্যুতে উদ্বেগ ও আতঙ্ক বিরাজ করছে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটিতে। এই পর্যন্ত করোনার ৩য় ঢেউয়ে প্রায় হাজার খানেক বাংলাদেশী আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। অনেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন; আবার কেউ কেউ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

আজ (১০ জুলাই) সকাল থেকে রাত ৭টা পর্যন্ত তিন প্রবাসী যুবকের মৃত্যুতে কমিউনিটিতে ভয় আর আতঙ্ক শুরু হয়েছে। সম্প্রতি আরো ২৩ জন বাংলাদেশী করোনা পজিটিভ ও করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার উদ্বেগ বেড়েই চলছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের অদূরে রোডিপোর্ট (Roodepoort) এলাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত আনুমানিক ৭টায় রায়হান মাহমুদ নামে এক তরুণ বাংলাদেশি করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।
মরহুম রায়হান লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর থানার কাঠালিয়া গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে। তিনি দীর্ঘ আট বছর দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাস করে আসছিলেন তরুণ এই রেমিটেন্স যোদ্ধা। করোনা আক্রান্ত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি হলে আজ সেখানে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এর আগে দুপুরে দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রমের হাসপাতালে আরো এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
মৃত্যুবরণকারী প্রবাসী যুবকের নাম মোহাম্মদ তানিম (বাবু)। উনার দেশের বাড়ি ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া জেলার বইসাল গ্রামে।
তিনি নর্থওয়েস্ট প্রভিন্সের ভেন্ডারসডর্প এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছিলেন।
তানিমকে আজ রাতে পচেফস্ট্রম মুসলিম কবরস্থানে দাফনের প্রস্তুতি চলছে বলে স্থানীয় বাংলাদেশী সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন।

এদিকে, আজ ভোরে উঠে বাংলাদেশীদের মৃত্যুর খবর শুনতে হয়েছে।
দক্ষিণ আফ্রিকার নর্থওয়েস্ট প্রভিন্সের খাইজনা এলাকায় করোনা আক্রান্ত হয়ে আরেক যুবকের মৃত্যু। উনার নাম নাহিদ হাসান, দেশের বাড়ি ঢাকার কেরানিগঞ্জের রুহিতপুরে।
প্রায় ১৫ দিন পুর্বে তার করোনা উপসর্গ দেখা দেয়, ডাক্তার দেখিয়ে নিজ দোকানেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলেও হাসপাতালে যায় নি। এমতাবস্থায় গত ভোর রাতে জীবনের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে