কোরবানির চামড়া নিয়ে শংকিত ব্যবসায়ীরা

0
10

ডেস্ক রিপোর্ট ॥ কোরবানির পশুর চামড়া ক্রয় নিয়ে শংকিত ব্যবসায়ীরা। কোরবানির ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে চট্টগ্রামের পশুর হাট গুলোতে আসতে শুরু করেছে কোরবানির পশু। সরকারীভাবে এখনো পর্যন্ত চামড়ার দাম নির্ধারন না হওয়ায় শংকিত চামড়া ব্যবসায়ীরা।
এদিকে করোনার কারণে কোরবানির পশুরা চামড়া কেনা নিয়েও দিধায় রয়েছেন আড়তদাররা। এ ছাড়া ঢাকার ট্যানারিগুলোতে আড়তদারদের অর্ধশত কোটি টাকা পাওনা এখনও বকেয়া রয়ে গেছে।
গত বছর কোরবানির ঈদে নজিরবিহীনভাবে কাঁচা চামড়ার দাম কমে য়ায়। দাম অস্বাভাবিক কমে যাওয়ায় চামড়া বিক্রি না করে রাস্তায় ফেলে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছিল। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যায় অন্তত দুই কোটি টাকার চামড়া। এবারও এমন কারণে শঙ্কিত চামড়া ব্যবসায়ীরা।
অপরদিকে করোনার কারণে চামড়ার আন্তর্জাতিক বাজার মন্দা হওয়ায় আড়তদার থেকে কাঁচা চামড়া কেনা নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছেন ট্যানারি মালিকরা। অভিযোগ রয়েছে, ঢাকার ট্যানারিগুলো সিন্ডিকেট করায় মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীদের ন্যায্য মূল্য দিতে পারেন না আড়তদাররা।
চট্টগ্রাম কাঁচা চামড়া আড়তদার ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির আহ্বায়ক মাহবুব আলম “নিউজ৭১” কে বলেন, চামড়া সংগ্রহ করতে প্রতিবছর ট্যানারি মালিকরা আড়তদারদের টাকা দিতেন। কিন্তু এ বছর ট্যানারি মালিকরা আড়তদারদেরকে এখনো টাকা দেননি। ট্যানারি মালিকরা টাকা না দিলে আড়তদাররা চামড়া কিনতে পারবেন না।
সূত্র জানায়, চট্টগ্রামে চামড়া ব্যবসার সঙ্গে ২০ থেকে ৩০ হাজার লোক জড়িত। চট্টগ্রামে গত বছর কোরবানির ঈদে সংগ্রহ করা ৬ লাখ চামড়ার মধ্যে ৪ লাখ চামড়া চলে যায় ঢাকার ট্যানারিগুলোতে। গত বছর চট্টগ্রামের ট্যানারি মালিকরা ঢাকায় ৩০ কোটি টাকার চামড়া বিক্রি করে। কিন্তু তা থেকে ৫০ শতাংশ টাকা এখনো বকেয়া। এর সঙ্গে রয়েছে আগের বকেয়া। সবমিলিয়ে যা প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা।
নিউজ ৭১/জেএম

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে