ভ্যাট মেলা করছে চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনারেট

0
63

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রামঃ অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন, ভ্যাট রিটার্ন দাখিল ও ইএফডিকে জনপ্রিয় করতে বুধবার থেকে চট্টগ্রামে দ্বিতীয় দফায় ভ্যাট মেলা শুরু হচ্ছে। কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট চট্টগ্রামের অধীনে আগ্রাবাদ, চট্টলা, চান্দগাঁও, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, পটিয়া, কক্সবাজার ও বান্দরবান এই ৮টি বিভাগীয় দফতরে দুই দিনব্যাপী (১০-১১ ফেব্রুয়ারি) ভ্যাট মেলা চলবে। মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আগ্রাবাদ ভ্যাট কমিশনারেটর দফতরের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন।

তিনি বলেন, ভ্যাট প্রদানে স্বচ্ছতা আনতে ইতোমধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) থেকে পাওয়া ১২০টি ইএফডি মেশিন চট্টগ্রাম অঞ্চলে স্থাপন করা হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যে আরও ৪০০টি ইএফডি মেশিন আমরা স্থাপন করতে পারব। এ মেশিনের সাহায্যে ভ্যাট দিলে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে যথাযথভাবে সরকারি কোষাগারে রাজস্ব জমার বিষয়টি নিশ্চিত হবে। মেলার পাশাপাশি আমরা নগরের গুরুত্বপূর্ণ বিপণিতানগুলোতে ২০টি ভ্যাট বুথ স্থাপনের মাধ্যমে সরাসরি সেবা দেব। ব্যবসায়িরা আমদের কাছে আসতে হবে না। আমরাই সম্মানিত করদাতাদের কাছে যাব। অনেক সময় ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন কর্মকর্তারা ভ্যাট রিটার্ন জমা দিতে চায় না। তাই মেলার আয়োজন করেছি। আপনারা মেলায় আসুন। কে রিটার্ন জমা নিতে চায় না আমরা দেখতে চাই। হয়রানি দূর করতে চাই। ব্যবসায়ীদের দোরগোড়ায় ভ্যাট সেবাকে নিয়ে যেতে চাই।

কমিশনার বলেন, প্রথমবার মেলা আয়োজন করে আমরা করদাতা ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। মূলত ব্যবসায়ীরা ভ্যাট নিবন্ধন গ্রহণ বা অনলাইনে রিটার্ন দাখিল করতে কোনো রূপ হয়রানির স্বীকার না হয় এবং লেজিটিমেট ট্রেড ফ্যাসিলিটেশন করাই হচ্ছে এ মেলা আয়োজনের মুখ্য উদ্দেশ্য। এর আগে ১১-১২ জানুয়ারি প্রথমবার চট্টগ্রামে ভ্যাট মেলা অনুষ্ঠিত হয়। তাতে দুই হাজার ৩৭৪টি রিটার্ন জমা পড়ে। পাশাপাশি ২৮৪টি প্রতিষ্ঠান নতুন নিবন্ধিত হয়। আদায় হয় ১৯ কোটি টাকা। ভ্যাট মেলা ও বুথের কারণে অনলাইনে রিটার্ন দাখিলের সংখ্যা গত কর মেয়াদের তুলনায় তিন হাজারটি বেড়েছে। রিটার্ন বাড়ায় রাজস্ব আদায়ও বেড়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের ডিসেম্বর মাসে রাজস্ব আদায় হয়েছিল ৬৭৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরের ডিসেম্বরে আদায় হয়েছে ৬৯৮ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। চলতি অর্থবছরে চট্টগ্রামের ভ্যাট কমিশনারেটের রাজস্ব আদায় লক্ষ্যমাত্রা ১৩ হাজার ৪৮০ কোটি টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম কমিশনার মো. মুশফিকুর রহমান, মোহাম্মদ সেলিম শেখ, উপ কমিশনার মো. শাহীনুর কবির পাভেল, কামনাশীষ, মো. সাইদ আহমেদ রুবেল, মুহাম্মদ ছৈয়দুল আলম, মো. আহসান উল্লাহ, সহকারী কমিশনার অনুরূপা দেব, এইচএম কবীর, এসএম সরাফত হোসেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে