ময়মনসিংহে পুলিশের এএসআই’র বিরুদ্ধে আপন চাচা’র সংবাদ সম্মেলন

0
32
Press Conference

এইচএম সাইফুল্লাহ্, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ
ময়মনসিংহের নান্দাইলে পুলিশের এ.এস.আই এর বিরুদ্ধে তার আপন চাচা-চাচী সাংবাদিক সম্মেলন করেন। তার চাচা নূর মোহাম্মদ ভূইয়া ও চাচি ফাতেমা আক্তার সাংবাদিক সম্মেলনে মোঃ আব্দুল হাদি’র বিরুদ্ধে জমি দখল ও অত্যাচার-নির্যাতনের গুরুতর অভিযোগ আনেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) নান্দাইল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পাঠ করে শুনান ভুক্তভোগী স্কুল শিক্ষক নূর মোহাম্মদ ভূইয়া। লিখিত বক্তব্যে তিনি তার বড় ভাই ফয়জুর রহমান কাসেমের পুত্র এ.এস.আই আব্দুল হাদি ও তাঁর সহোদর ভাই আবদুল বারি, হোসেন আহম্মদ, চাচা আব্দুল হামিদ ও হাইদুল ইসলাম গংদের হাত থেকে রেহাই পেতে ও সুবিচারের জন্য উর্ধ্বতন পুলিশ প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে ভোক্তভোগী নূর মোহাম্মদ বক্তব্যে বলেন, আব্দুল হাদি পুলিশ প্রশাসনে চাকুরি করার প্রভাব কাটিয়ে এলাকায় এসে তার পরিবার ফাতেমা আক্তার ও ছেলে জেনিফ আহম্মেদকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে।

এছাড়া তিনি আরো উল্লেখ করেন, আমার নগদ টাকার প্রয়োজনে হলে আমার ১৭ শতাংশ জমি বিক্রি করার পূর্বে আমার ভাতিজা আব্দুল হাদিকে ক্রয় করার জন্য জানালে সে ক্রয় করতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে জমি অন্যের কাছে বিক্রি করতে চাইলে বাঁধার সৃষ্টি করেন। এবং জমি বিক্রি করার পর আমার ভাতিজা আব্দুল হাদি আমার জমি ক্রেতাকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করে। উক্ত জমি বিক্রয়কে কেন্দ্র করে বেশ কদিন ধরে এএসআই আব্দুল হাদি তার আপন চাচীকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও তাকে খুন জখমের হুমকি দিয়ে আসছে।

এছাড়া স্কুল শিক্ষক নূর মোহাম্মদ এর ছেলে জেনিফ আহম্মেদকে এএসআই আব্দুল হাদির নির্দেশ ধূরুয়া আনন্দ বাজারে হাইদুল ইসলাম, আঃ হামিদ, আসাদুল্লাহ, ওবায়দুল, আব্দুল বারী, হেসেন আহম্মেদ মিলে মারধর করলে ২৭শে আগস্ট নান্দাইল মডেল থানায় আব্দুল হাদির নাম বাদ দিয়ে একটি মামলা নথিভূক্ত করার পর একজন গ্রেফতার করা হয়। উক্ত মামলায় বিবাদী ৬ জন বিজ্ঞ কোর্টে মোসালেকা দিয়ে এসে এ.এস.আই আব্দুল হাদির নির্দেশনায় পুনরায় জমি দখল সহ অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে।

জোরপূর্বক দখলে নিয়ে গেলে আমি (ভুক্তভোগী) নান্দাইল মডেল থানায় অভিযোগ করেও এর কোন প্রতিকার পাইনি এবং আব্দুল হাদি পুলিশ সদস্য হওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশ কোন ডায়েরী নথিভূক্ত নিচ্ছেন না বলেও সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন।

তিনি আরো জানান, আব্দুল হাদি পুলিশের সদস্য সুবিধা নিয়ে, হাজিরা খাতায় হাজিরা দেখিয়ে বাড়িতে এসে আমাকে ও আমার স্ত্রী ফাতেমা আক্তারকে খুন-জখম সহ বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় হয়রানি করার হুমকী দিয়ে আবার কর্মস্থলে চলে যায়।

ফাতেমা আক্তার জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ময়মনসিংহ জেলা বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্টেট আদালত (নান্দাইল অঞ্চল) মামলা নাং-৫৯৫, ১০৭/১১৭ চলমান রয়েছে। আমরা এর সুষ্ট ও সঠিক বিচার চাই।

সংবাদ সম্মেলনে নান্দাইলে কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক মিডিয়ার ২৬জন সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে