শীঘ্রই ঘোষনা হচ্ছে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি

0
7
  1. ডেস্ক রিপোর্ট ॥
    অবশেষে পূর্ণাঙ্গ হতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি । প্রায় এক বছর পর চলতি সপ্তাহেই ঘোষিত হবে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি। আগের প্রস্তাবিত কমিটিতে সংশোধনী এনে নতুন করে করা কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে আনা হচ্ছে বাদ পড়া তিনজনকে । এতে তিন উপজেলার প্রভাবশালী তিন নেতার পাশাপাশি ঠাঁই হচ্ছে সাবেক ছাত্র নেতাদেরও। উপদেষ্টা হিসেবে থাকছেন প্রভাবশালী এক সাংসদও।
    সাবেক ও বর্তমান দুই মন্ত্রীর সিদ্ধান্তে করা এ কমিটিতে যুক্ত হচ্ছেন ২০ থেকে ৩০ শতাংশ নতুন মুখ। তবে প্রস্তাবিত কমিটিতে কম গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার কথা থাকলেও সংশোধিত কমিটিতে মনজু, নুরুল হুদা ও তৈয়বের পদোন্নতিটাই চমক হিসেবে ধরা হচ্ছে। তবে মোশাররফ হোসেন বিরোধী হিসেবে পরিচিতি পাওয়া গিয়াস উদ্দিন ও ইউনুস গণি চৌধুরী সংশোধিত কমিটিতেও অবহেলিত থাকছেন। তাদের নামমাত্র সদস্য হিসেবে কমিটিতে রাখা হয়েছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একটি সুত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
    গত বছরের ৭ ডিসেম্বর সরাসরি কাউন্সিলরদের ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শেখ আতাউর রহমান। কিন্তু আগের কমিটির অনেক ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে ‘নিজেদের লোক’ দিয়ে প্রস্তাবিত কমিটির রূপরেখা তৈরী করেন সভাপতি ও সেক্রেটারি। তবে সেই কমিটির বিরুদ্ধে দলীয় সভানেত্রীর সঙ্গে দেখা করে নালিশ দিয়েছিলেন সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলে করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে এম এ সালামের বিরোধী পক্ষ। পরে কমিটি হচ্ছে হচ্ছে বলার পরও আটকে যায় এ কমিটি গঠন প্রক্রিয়া।
    দলীয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি সপ্তাহেই ঘোষণা হচ্ছে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। আগের প্রস্তাবিত কমিটিতে নামমাত্র রাখা হলেও সংশোধিত কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে ঠাঁই পেয়েছেন তিন প্রভাবশালী নেতা। তারা হলেন, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ফটিকছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এইচ এম আবু তৈয়ব, যুগ্ম সম্পাদক পদে পরিবহন নেতা হাটহাজারীর মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু ও মিরসরাইয়ের নুরুল হুদা। উপদেষ্টা হিসেবে রাখা হয়েছে উত্তর জেলার সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাউজানের সাংসদ ফজলে করিম চৌধুরীকে।
    এছাড়া গত কমিটির বেশ কয়েকটি পদেও আনা হয়েছে পরিবর্তন। বিশেষ করে সহ-সভাপতি ও যুগ্ম সম্পাদক পদেও ওলট-পালট করা হচ্ছে। ৭৫ সদস্যের এই কমিটিতে রাখা হয়েছে একঝাঁক সাবেক ছাত্রনেতাকেও। কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি ও যুগ্ম সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের মতামতকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। কমিটিতে কারা থাকতে পারবেন সে বিষয়ে পৃথকভাবে দুই নেতার মতামতও নিয়েছেন কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক। কমিটি অনুমোদনের ক্ষেত্রে সক্রিও রয়েছেন সাবেক-বর্তমান দুই মন্ত্রী।
    এদিকে নতুন এ কমিটিতে সভাপতি-সম্পাদকের পছন্দের ব্যক্তিদেরও রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে পুরো কমিটিতে ২০-৩০ শতাংশ নেতা প্রথমবারের মতো স্থান পেতে পারেন। চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ সালাম বলেন, ‘উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হওয়ার পর থেকে কমিটি ঘোষণা হচ্ছে-হবে বলে এখনো হয়নি। তবে যে কোন সময় কেন্দ্র থেকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করা হবে।
    ডেস্ক রিপোর্ট/নিউজ৭১

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে